বাল্যবিবাহ বন্ধে রাস্তায় শিক্ষার্থীরা

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : বান্ধবীদের বাল্যবিবাহ বন্ধে রাস্তায় মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা। এলাকার অসচেতন অভিভাবকদের সচেতন করতে এই উদ্দ্যোগ নিয়েছে তারা।

আজ বুধবার সকালে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার সদরপুর সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা তাদের বান্ধবীদের বাল্যবিবাহ বন্ধের দাবীতে কুষ্টিয়া-মেহেরপুর মহাসড়কে এক বাল্য বিবাহবিরোধী র‌্যালি করেছে।
“বাল্যবিবাহ রোধ করবো, সোনার বাংলা গড়বো” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে তারা এ র‌্যালি করে।
শিক্ষার্থীদের এমন উদ্দ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে তাদের সাথে র‌্যালি করেছে মাদ্রাসার শিক্ষকমন্ডলীসহ এলাকার সচেতন মানুষ এবং জনপ্রতিনিধিরা।
জানা যায়, চলতি বছরে সদরপুর সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে বাল্যবিবাহের শিকার হয়েছে ৩০ জন শিক্ষার্থী। এছাড়া বিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত বাল্যবিবাহের শিকার ১২জন ছাত্রী নিয়মিত বিদ্যালয়ে আসে। বিবাহের পরে বন্ধ হয়ে গেছে অনেক শিক্ষার্থীর। বাল্য বিবাহের কারনে বিদ্যালয়টিতে ছাত্রীর সংখ্যা দিনদিন কমে যাচ্ছে।
উম্মে হাবিবা বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগে অধ্যায়নরত মেধাবী ছাত্রী। সেও বাল্যবিবাহের শিকার। বিদ্যালয়ে ৬ষ্ট শ্রেণিতে অধ্যয়নরত অবস্থায় বিয়ে হয় তার।
উম্মে হাবিবা জানান, “আমি চাই না আমার মতো কোন ছাত্রী আর যেন বাল্য বিবাহের শিকার হয়।”
বিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত উম্মে হাবিবার মতো বাল্যবিবাহের শিকার আয়েশা (৬ষ্ট শ্রেণিতে) ও পপি (৯ম শ্রেনিতে)’র দাবী তাদের পরিবার বাল্যবিয়ে দিয়ে ভুল করেছে তা যেন আর কোন পরিবার না করে। আমরা লেখাপড়া করতে চাই। বাল্য বিবাহ দিয়ে আমাদের ভবিষ্যতটা নষ্ট করবেন না।
সদরপুর সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার শেখ মহিউদ্দিন আহম্মেদ জানান, বাল্য বিবাহ এই অঞ্চলে ভয়াবহ রুপ ধারন করেছে। এতে ছাত্রীদের জীবন অকালে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। বিদ্যালয়ে ঝরেপড়া ছাত্রীদের সংখ্যা দিনদিন বাড়ছে।

বিদ্যালয়ের সভাপতি মাজেদুর আলম বাচ্চু জানান, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। এজন্য অভিভাবকদের সচেতন করতে হবে।

x

Check Also

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষিকার আত্মহত্যার চার্জশিটে নিয়ে অসন্তোষ

রাজশাহী প্রতিনিধিঃ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আকতার জাহানের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা মামলার চার্জশিট ...

Translate »
shares