প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে!!!!!যোগাযোগের ঠিকানা: মোবাইল: ০১৭১২-৮৪ ০৯ ৪২, ০১৭৩৯- ৮৪ ৬১ ১৪ !!!!!!! ই-মেইল: shadhinkantho24@gmail.com

ধর্ম Archives - || স্বাধীনকন্ঠ২৪.কম ||

ধর্ম

অযূ-গোসলে পানি পরিমিত খরচ করা

আল হাদিস আনাস রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন: “নবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম এক সা’ হতে পাঁচ মুদ (কম-বেশী ২৫০০ থেকে ৩১২৫ গ্রাম) পর্যন্ত পানি দিয়ে গোসল এবং এক মুদ (কম-বেশী ৬২৫ গ্রাম) পানি দিয়ে অযূ করতেন।” [বুখারী: ২০১, মুসলিম: ৭৩৭]

Read More »

আল হাদিস

১৪ নং পরিচ্ছেদ আল্লাহকে হাজির-নাযির জেনে একনিষ্ঠচিত্তে সুন্দর ও পূর্ণাঙ্গভাবে সালাত আদায়ের নির্দেশ ২৪৬। আনাস ইবনে মালেক (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা) বলেছেন, তোমরা সঠিকভাবে রুকু সিজদা আদায় কর। আল্লাহর শপথ! আমি অবশ্যই আমার পেছন দিক থেকে তোমাদের দেখে থাকি। অনেক সময় তিনি বলতেন, তোমরা যখন রুকু ও সেজাদ কর, তখন আমার পেছন দিক থেকে তোমাদের অবশ্যই দেখতে পাই। (বুখারী-কিতাবুল আযান)

Read More »

আল কোরআন

সূরা আলে ইমরান মদীনায় অবতীর্ণ আয়াত : ২০০; রুকূ : ২০ ১৫৯. অতএব, আল্লাহর অনুগ্রহ এই যে, তুমি তাদের প্রতি কোমল চিত্ত এবং তুমি যদি কর্কশভাষী, কঠোর হৃদয় হতে তাহলে নিশ্চয় তারা তোমার পাশ থেকে সরে যেত। অতএব, তুমি তাদেরকে ক্ষমা কর ও তাদের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা কর এবং কার্য সম্বন্ধে তাদের সাথে পরামর্শ কর। অনন্তর যখন তুমি সংকল্প করে ফেললে, তখন আল্লাহর প্রতি ভরসা কর এবং নিশ্চয় আল্লাহ তাঁর উপর ভরসাকারীগণকে ভালবাসেন।

Read More »

আল কোরআন

সূরা আনফাল মদীনায় অবতীর্ণ। আয়াত : ৭৫; রুকূ : ১০ ১. হে নবী! লোকেরা তোমাকে যুদ্ধলব্ধ সম্পদ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করছে। তুমি বল, যুদ্ধলব্ধ সম্পদ আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের জন্য। অতএব, তোমরা এ ব্যাপারে আল্লাহকে ভয় কর এবং তোমাদের নিজেদের পারস্পরিক সম্পর্ক সঠিকরূপে গড়ে নাও, আর যদি তোমরা মুমিন হয়ে থাক তাহলে আল্লাহ এবং তাঁর রাসূলের আনুগত্য কর। ২. নিশ্চয় মুমিনরা তো এমন, যখন (তাদের সামনে) আল্লাহর নাম উচ্চারণ করা হয়, তখন তাদের অন্তরসমূহ ভীত হয়ে পড়ে, আর যখন তাদের সামনে তাঁর আয়াত- সমূহ পাঠ করা হয় তখন তা তাদের ঈমানকে আরও বৃদ্ধি করে, আর তারা নিজেদের রবের উপর নির্ভর করে।

Read More »

জানের বদলে জান এবং চোখের বদলে চোখ

আল হাদিস আব্দুল্লাহ্ রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: “যে মুসলিম সাক্ষ্য দেয় যে, আল্লাহ্ ব্যতীত আর কোন সত্য মা’বূদ নেই এবং আমি তাঁর রাসূল, তার রক্ত তিনটি কারণ ব্যতীত প্রবাহিত করা যাবে না- (১) হত্যার বদলে হত্যা, (২) বিবাহিত ব্যক্তি যে অবৈধ যৌন ব্যভিচারে লিপ্ত হয় এবং (৩) ঐ ব্যক্তি, যে ইসলাম ত্যাগ করে মুরতাদ হয় ও মুসলিম জামা’আত থেকে বিচ্ছিন্ন হয়।” [বুখারী: ৬৮৭৮]

Read More »

পরস্পরের কল্যাণ কামনা মুসলমানের অধিকার

নিউজ ডেস্ক : সাহাবি হজরত তামিম আদ দারি (রা.) হতে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) বলেন, ‘দ্বীন হচ্ছে যথাযথভাবে কল্যাণ কামনা করা।’ কথাটি নবী করিম (সা.) তিনবার বললেন। আমরা বললাম, কার জন্য? তিনি বললেন, আল্লাহর জন্য, তার কিতাবের (কোরআন) জন্য, তার রাসূলের জন্য, মুসলিম নেতাদের জন্য এবং সাধারণ মুসলমানের জন্য। -সহিহ মুসলিম হজরত জারির ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) বলেন, আমি হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর সঙ্গে অঙ্গীকার করেছি, নামাজ প্রতিষ্ঠার জন্য, জাকাত প্রদানের জন্য এবং সব মুসলমানের কল্যাণ কামনার জন্য। উল্লেখিত হাদিসসমূহে আরবি ‘নাসিহা’ শব্দ রয়েছে। যার ভাবার্থ এক কথায় প্রকাশ করা সম্ভব নয়। তবে অল্প কথায় এভাবে বলা যায়, প্রত্যেকের যথাযথ হক বা ...

Read More »

মধ্যম পন্থা অবলম্বন সবকিছুতে উত্তম

নিউজ ডেস্ক: মধ্যম পন্থা একটি পরিচিত শব্দ। শব্দটি আমরা প্রায়ই শুনে থাকি। ধর্ম পালনের ক্ষেত্রে মধ্যম পন্থা অবলম্বনের কথা বলা হয় বিশেষভাবে। প্রশ্ন হলো- এই মধ্যম পন্থা আসলে কী? এ বিষয়ে ইসলামি স্কলাররা বলেন, মানুষ দ্বীনের মধ্যে কোনো কিছু বাড়াবে না। যাতে সে আল্লাহর নির্ধারিত সীমা অতিক্রম করে ফেলে। এমনিভাবে দ্বীনের কোনো অংশ কমাবে না। যাতে সে আল্লাহর নির্ধারিত দ্বীনের কিছু অংশ বিলুপ্ত করে দেয়। হজরত নবী করিম (সা.)-এর জীবন অনুসরণ করা দ্বীনের মধ্যে মধ্যম পন্থা অবলম্বনের অন্তর্ভুক্ত। তার জীবনাদর্শ অতিক্রম করা দ্বীনের ভেতরে অতিরঞ্জনের শামিলল। নবীর জীবন অনুসরণ না করা, তাকে অবহেলা করার অন্তর্ভুক্ত। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, একজন লোক ...

Read More »

ইমান যেসব কারণে বাড়ে ও কমে

নিউজ ডেস্ক : আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের মতে ঈমানের অর্থ হলো- আল্লাহর একত্ববাদের প্রতি অন্তরের বিশ্বাস, মৌখিক স্বীকারোক্তি এবং অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের আমল। যেহেতু উল্লিখিত বিষয়সমূহের সমষ্টির নাম ঈমান, সে হিসেবে ইমান বাড়বে ও কমবে এটিই স্বাভাবিক। কারণ অন্তরের বিশ্বাসেরও তারতম্য হয়ে থাকে। সংবাদ শুনে কোনো কিছু বিশ্বাস করা, আর নিজ চোখে দেখে বিশ্বাস করা- এক কথা নয়। অনুরূপভাবে একজনের দেওয়া সংবাদ বিশ্বাস করা আর দু’জনের সংবাদ বিশ্বাস করা এক কথা নয়। এ জন্যই হজরত ইবরাহিম (আ.) বলেছিলেন, ‘হে আমার প্রতিপালক! আমাকে দেখান আপনি কিভাবে মৃতকে জীবিত করেন। আল্লাহ বললেন, তুমি কি বিশ্বাস করো না? হজরত ইবরাহিম (আ.) বললেন, বিশ্বাস তো অবশ্যই ...

Read More »

জালিয়াত ও বিশ্বাসঘাতকের কোনো স্থান নেই ইসলামে

নিউজ ডেস্কঃ : যেকোনো প্রকারের প্রতারণা ও ফাঁকি অত্যন্ত নিন্দনীয় কাজ। কোনো মানুষ এটা করতে পারে না। মানুষের সততার জন্য প্রয়োজন আন্তরিকতা, ন্যায়নীতি ও সরলতা। সেখানে প্রতারণা, প্রবঞ্চনা, মিথ্যাচার, ধূর্ততা ও ফাঁকিবাজির কোনো স্থান নেই। পবিত্র কোরআন ও হাদিসের বর্ণনায় বিষয়টি স্পষ্ট করা হয়েছে। প্রতারণা যার সঙ্গেই করা হোক- মুসলিম কী অমুসলিম, তা সব সময়ই নিষিদ্ধ। প্রকৃত মুসলিম সর্বদা সত্যপরায়ণতার দিকে পরিচালিত হন। অর্থাৎ তখন তিনি প্রতারণা ও পরনিন্দা পরিহার করে চলেন সর্বতোভাবে। হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যে আমাদের বিরুদ্ধে অস্ত্রধারণ করে, সে আমাদের লোক নয় এবং যে কেউ আমাদের প্রতারিত করবে, সে-ও নয় আমাদের লোক। -সহিহ মুসলিম আরেক হাদিসে ...

Read More »

ইমাম আসতে দেরি হলে সালাত শুরু করা প্রসংগে

আল হাদিস সাহ্ল ইবনে সা‘আদ আস-সায়িদী (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা) একবার বনি আমর ইবনে আওফ গোত্রে তাদের মধ্যকার একটি বিষয় মীমাংসা করতে গিয়েছিলেন। ইতিমধ্যে সালাতের সময় হয়ে গেল। তখন মুয়াযিন আবু বকরের নিকট এসে বললো, আপনি কি লোকদের নিয়ে সালাত আদায় করবেন? আমি তাহলে ইকামাত দিই তিনি বললেন, হ্যাঁ। আবুবকর সালাত আদায় করা শুরু করলেন। এমতাবস্থায় রাসূলুল্লাহ (সা) এসে গেলেন। লোকজন তখন সালাত আদায় করছিলেন তিনি কাতার ভেদ করে প্রথম কাতরে গিয়ে দাঁড়ালেন, এতে লোকেরা হাততালি দিতে শুরু করলেন। আবু বকর সালাত আদায় করার সময় এদিক-সেদিকে তাকাতেন না। কিন্তু লোকেরা যখন বেশি মাত্রায় হাততালি দেয়া শুরু করলো, ...

Read More »

সাহাবীদের কঠোর ত্যাগের বিনিময়ে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল

আল হাদিস আবূ মাসউদ আনসারী রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন: রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন আমাদেরকে দান করার আদেশ করতেন তখন আমাদের কেউ কেউ বাজারে চলে যেত এবং বোঝা বহন করে এক মুদ (প্রায় এক সের) মুজুরী লাভ করত এবং তা থেকে দান করত, আর আজ তাদের কেউ কেউ লাখপতি। [বুখারী ১৪১৬]

Read More »

রাসূল (স) ১৯টি যুদ্ধে অংশ নিয়েছেন ও একটি মাত্র হজ্জ করেছেন

আল হাদিস যায়েদ বিন আরকাম রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন: নবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম ১৯টি যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছেন। আর হিজরতের পর মাত্র একটি হজ্জ করেছেন। সেটি হচ্ছে বিদায় হজ্জ, এর পর তিনি আর কোন হজ্জ করেননি। [বুখারী: ৪৪০৪]

Read More »

মামুলী চুরির জন্যেও জাহান্নাম অনিবার্য হয়

আল হাদিস আব্দুল্লাহ্ বিন আমর রাদিয়াল্লাহু ‘আনহুমা থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন: “কারকারাহ্ নামক এক ব্যক্তির উপর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আসবাব পত্র রক্ষণা বেক্ষণের দায়িত্ব অর্পিত ছিল। সে মারা গেলে রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন: “সে জাহান্নামী হবে”। লোকেরা এ ব্যাপারে খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারল যে, সে গণীমতের মাল থেকে একটা আবা আÍসাৎ করেছিল। [বুখারী: ৩০৭৪]

Read More »

ইমাম কর্তৃক নায়েব নিয়োগ করা

আল হাদিস আয়েশা (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা)-এর পীড়া যখন বেড়ে গেল, তখন একদিন বিলাল (রা) এসে আযান দিলেন। রাসূলুল্লাহ (সা) বললেন, “আবু বকরকে বলো, লোকজনকে নিয়ে জামায়াতে সালাত আদায় করতে।” তখন আমি বললাম, আবু বকর অত্যন্ত কোমলহুদয় মানুষ। আপনার জায়গায় দাঁড়িয়ে সালাতে ইমামতি করতে গেলে কান্নার দরুন লোকজনকে তিনি (কুরআনের) কিছুই শোনাতে পারবেন না। আপনি যদি তার পরিবর্তে উমারকে আদেশ করতেন, তবে ভাল হতো। আমার কথা বলার পরেও তিনি বললেন, “আবু বকরকে সালাতে ইমামতি করতে বলো।” তারপর আমি হাফসার কাছে গিয়ে বললাম, তুমি রাসুুলুল্লাহ (সা)-কে একটু বলো যে, আবু বকর নরম দিলের মানুষ। তিনি যদি আপনার জায়গায় ...

Read More »

কাজা নামাজ নিয়ে বিভ্রান্তি কেন?

ধর্মীয় ডেস্ক: কাজা নামাজ অবশ্যই পড়তে হবে। নামাজ নির্ধারিত ওয়াক্তের মধ্যে না পড়ে পরে পড়লে তা হয় কাজা নামাজ। কোরআন ও হাদিসে যথা সময়ে ওয়াক্তের নামাজ আদায়ের প্রতি যেমন গুরুত্ব দেয়া হয়েছে, তেমনি কাজা নামাজ আদায়ের তাগিদ দেয়া হয়েছে। যুগ যুগ ধরে মুহাদ্দিস ও ফকিহরা এ শিক্ষাই দিয়ে গেছেন। মাসআলাটি এত প্রসিদ্ধ যে সাধারণ মুসলমানরাও এ সম্পর্কে অবগত। কিন্তু ইদানিং এ নিয়ে নতুন বিভ্রান্তি শুরু হয়েছে। কেউ কেউ প্রচার শুরু করছেন নতুন নতুন মত। ইচ্ছাকৃতভাবে নামাজ ছেড়ে দিলে তার কাজা নেই। এমন বক্তব্য প্রচার হয়েছে কোনো এক গণমাধ্যমেও। সঙ্গত কারণেই বিভ্রান্ত হচ্ছেন মুসলমানরা। একদিন আমাকে এক বৃদ্ধ বললেন, হুজুর আমাকে ...

Read More »

ক্রিকেট নিয়ে সর্বনাশা জুয়া

ধর্মীয় ডেস্ক: আবদুল্লাহপুরের মুদি দোকানি কায়েস (ছদ্মনাম)। দিন শেষে তার রোজগার পাঁচশ’ বা তার কিছু বেশি। কিন্তু যেদিন কোনো দলের ক্রিকেট খেলা থাকে সেই দিন তার ব্যস্ততা বেড়ে যায়। ক্রেতাকে পণ্য দেওয়ার ফাঁকেই দোকানের সেলফে থাকা টিভিতে চোখ বুলিয়ে নেন। তার দোকানের সামনে রাখা লম্বা টুলে দুপুর গড়াতেই এসে ভিড় করেন স্থানীয় কিছু লোক। দূর থেকে দেখলে মনে হবে, সবাই নিপাট ক্রেতা। আর কায়েস ব্যস্ত বিক্রেতা। কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন। কায়েস ও তার দোকানের সামনে ভিড় করা তরুণ, ছাত্র কিংবা মাঝ বয়সী ব্যবসায়ীসহ যারা আছেন, সবাই টেলিভিশনে ক্রিকেট খেলা দেখেন আর বাজি ধরেন। তাদের বাজি টাকার অংকে খুব বড় নয়। কিন্তু ...

Read More »

কালিজিরা মৃত্যু ব্যতীত সকল রোগের ঔষধ

ধর্ম ডেস্কঃ আয়েশা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহা থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি নবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি: “এ কালিজিরা সাম ব্যতীত সমস্ত রোগের নিরাময়। আমি বললাম: সাম কি? তিনি বললেন: মৃত্যু!” [বুখারী: ৫৬৮৭]

Read More »

লোক দেখানো ও শোনানো ইবাদাত আল্লাহ্ প্রকাশ করে দিবেন

আল হাদিস জুন্দাব রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: “যে ব্যক্তি তার কৃতকর্মের সুনামের লোক সমাজে প্রচার করে বেড়ায়, আল্লাহ্ কেয়ামতের দিন তার কৃতকর্মের প্রকৃত উদ্দেশ্যের লোকদেরকে জানিয়ে ও শুনিয়ে দিবেন। আর যে ব্যক্তি লোক দেখানোর উদ্দেশ্যে এ কাজ (সৎকাজ) করবে, আল্লাহ্ কেয়ামতের দিন তার প্রকৃত উদ্দেশ্যের কথা লোকদের মাঝে প্রকাশ করে দিবেন।”  [বুখারী: ৬৪৯৯] 

Read More »

ঈসা ইবনে মরিয়ম (আ) ও দাজ্জালের বিবরণ

আল হাদিস ১০৭। আবদুল্লাহ ইবনে উমার (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সা) একদিন মানুষের মাঝে মাসীহ দাজ্জালের কথা আলোচনাকালে বললেন, “নিশ্চয়ই আল্লাহ অন্ধ নন। সাবধান, দাজ্জালের ডান চোখ কানা, তার চোখ ফুলে উঠা আঙ্গুরের মতো। (বুখারী-কিতাবুল আম্বিয়া)  

Read More »

আল কোরআন

আল কোরআন সূরা আরাফ মক্কায় অবতীর্ণ। আয়াত : ২০৬; রুকূ : ২৪ ১৮৬. যাদেরকে আল্লাহ বিপথগামী করেন, তাদের কোন পথ প্রদর্শক নেই, আর তাদেরকে তিনি তাদের অবাধ্যতায় উদ্ভ্রান্তের মত ঘুরে বেড়াতে দেন। ১৮৭. তারা তোমাকে জিজ্ঞেস করে, ‘কিয়ামত কখন ঘটবে?’ বল, ‘এ বিষয়ের জ্ঞান শুধু তোমার প্রতিপালকেরই আছে। শুধু তিনিই যথাসময়ে তা প্রকাশ করবেন। তা আসমান ও যমীনে একটি ভয়ঙ্কর ঘটনা হবে। হঠাৎ করেই তা তোমাদের উপর আসবে।’ তুমি এ বিষয়ে ভাল করে জান মনে করে তারা তোমাকে প্রশ্ন করে। বল, ‘এ বিষয়ের জ্ঞান শুধু আল্লাহরই আছে। কিন্তু অধিকাংশ লোক জানে না।’  

Read More »
PopAds.net - The Best Popunder Adnetwork
Translate »