স্বাধীনকন্ঠ২৪.কম পরিবারের পক্ষ থেকে সবাইকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা

সম্পাদকীয় Archives - || স্বাধীনকন্ঠ২৪.কম ||

সম্পাদকীয়

ত্রাণ নিয়ে ব্যবসা

সম্পাদকীয় মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বের প্রশংসা কুড়িয়েছে। শুধু আশ্রয় নয়, নতুন করে আসা সাত লাখ মানুষের খাওয়া, স্বাস্থ্যসেবারও ব্যবস্থা করা হয়েছে। সরকারের একার পক্ষে লোকবল দিয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সার্বিক কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব নয় বলে বিভিন্ন এনজিওর সহায়তা নেওয়া হয়েছে। কিন্তু এসব বেসরকারি সাহায্য সংস্থা ত্রাণের নামে রীতিমতো ব্যবসা করছে। মানবিক সহায়তার নামে এসব এনজিও বাণিজ্য করছে। কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক এনজিও ব্যুরোর মহাপরিচালক বরাবর যে প্রতিবেদন পাঠিয়েছেন, তাতে দেখা যাচ্ছে, অভিযুক্ত ৯টি এনজিওর মধ্যে বিদেশি এনজিও-ও রয়েছে। উল্লেখ্য, বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমারের নাগরিকদের জন্য ৯০টি এনজিও জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে কার্যক্রম চালিয়ে ...

Read More »

লাখ টাকায় স্কুলে ভর্তি

সম্পাদকীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মেধা ও মননের চর্চা হয়। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এখান থেকেই আদর্শ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশের হাল ধরে। এ কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকেও হতে হয় আদর্শস্থানীয়। কিন্তু বাংলাদেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর দিকে তাকালে কি তেমন মনে হয়? বরং উল্টোটাই সত্য বলে মনে হয়। প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি হওয়া থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ শিক্ষার সনদ নেওয়া পর্যন্ত অনিয়ম-দুর্নীতির অন্ত নেই। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কিভাবে আদর্শ মানুষ তৈরি করবে? জাতির মেরুদ-ের কী হবে? প্রকাশিত খবর থেকে জানা যায়, ঢাকার নামিদামি স্কুলগুলোতে ভর্তি বাণিজ্য ফুলেফেঁপে উঠেছে। স্কুলভেদে ভর্তির জন্য শিক্ষার্থীপ্রতি ঘুষ নেওয়া হয় সাত লাখ টাকা পর্যন্ত। একটি-দুটি নয়, প্রায় সব কটি নামিদামি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেরই একই হাল। প্রথম শ্রেণিতে লটারির ...

Read More »

লাখ টাকায় স্কুলে ভর্তি

সম্পাদকীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মেধা ও মননের চর্চা হয়। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এখান থেকেই আদর্শ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশের হাল ধরে। এ কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকেও হতে হয় আদর্শস্থানীয়। কিন্তু বাংলাদেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর দিকে তাকালে কি তেমন মনে হয়? বরং উল্টোটাই সত্য বলে মনে হয়। প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি হওয়া থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ শিক্ষার সনদ নেওয়া পর্যন্ত অনিয়ম-দুর্নীতির অন্ত নেই। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কিভাবে আদর্শ মানুষ তৈরি করবে? জাতির মেরুদ-ের কী হবে? প্রকাশিত খবর থেকে জানা যায়, ঢাকার নামিদামি স্কুলগুলোতে ভর্তি বাণিজ্য ফুলেফেঁপে উঠেছে। স্কুলভেদে ভর্তির জন্য শিক্ষার্থীপ্রতি ঘুষ নেওয়া হয় সাত লাখ টাকা পর্যন্ত। একটি-দুটি নয়, প্রায় সব কটি নামিদামি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেরই একই হাল। প্রথম শ্রেণিতে লটারির ...

Read More »

নিয়োগ পরীক্ষা ভ-ুল

সম্পাদকীয় বাংলাদেশ ব্যাংকের অধীন সমন্বিত আট ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নিতে এসে পরীক্ষা দিতে পারেননি সাড়ে পাঁচ হাজারের বেশি চাকরিপ্রার্থী। কেন্দ্রে আসন না পেয়ে ভাঙচুরও করেছেন তাঁরা। কর্তৃপক্ষ নতুন পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করেছে। প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, মিরপুরের একটি কলেজকেন্দ্রে পাঁচ হাজার ৬০০ প্রার্থীর পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু একটি বেঞ্চে পাঁচ থেকে ছয়জন করে বসানোর পরও প্রার্থীদের জায়গা হয়নি। প্রশ্ন হচ্ছে, এমন অবস্থা কেন সৃষ্টি হবে? পরীক্ষার্থীদের সঙ্গে এ কেমন আচরণ! দেশে শিক্ষিত ও যোগ্য বেকারের সংখ্যা বাড়ছে। প্রতিবছর উল্লেখযোগ্যসংখ্যক তরুণ উচ্চশিক্ষা নিয়ে বেরিয়ে আসছেন। কর্মসংস্থানের জন্য প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন তাঁরা। উপযুক্ত প্রার্থীদের সবারই প্রথম পছন্দ সরকারি ...

Read More »

জঙ্গি আস্তানা নাখালপাড়ায়

সম্পাদকীয় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোর অব্যাহত তৎপরতার কারণে জঙ্গিরা কিছুটা দুর্বল হলেও তাদের তৎপরতা থেমে যায়নি। তারই প্রমাণ পাওয়া গেল গতকাল শুক্রবার নাখালপাড়ায়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে মাত্র কয়েক শ গজ দূরের একটি বাড়িতে পাওয়া গেছে জঙ্গি আস্তানা। গোপন খবরের ভিত্তিতে র‌্যাব সদস্যরা বাড়িটি ঘিরে ফেললে জঙ্গিরা গ্রেনেড ছুড়ে মারে। এতে র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হন। পরে র‌্যাব সদস্যদের সঙ্গে গোলাগুলিতে তিন জঙ্গি নিহত হয়। জানা গেছে, রুবি ভিলা নামের এই বাড়ির পাঁচতলা থেকে তিনটি ইমপ্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস, চারটি পাওয়ার জেল ও দুটি পিস্তল উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়া তিনটি সুইসাইডাল ভেস্ট পাওয়া গেছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশপাশের এলাকায় স্বাভাবিকভাবেই অনেক বেশি গোয়েন্দা ...

Read More »

এশিয়ায় শান্তি ও নিরাপত্তা

সম্পাদকীয় এশিয়ার দেশে দেশে মানুষের জীবনে শান্তি ও নিরাপত্তা সমানতালে প্রবহমান নয়। অভ্যন্তরীণ ও বহির্দেশীয় চাপের মুখে শান্তির শ্বেত কপোতগুলো নির্বাসিত প্রায়। মহাদেশের চার প্রান্তের দেশগুলোর স্থিতিশীলতা প্রায়শই পড়ে বিপর্যয়ের মুখে। এর মধ্যে দক্ষিণ এশিয়া বিশ্বের অন্যতম সংঘাতপূর্ণ এলাকায় পরিণত। এখানে দীর্ঘদিন থেকে বিভিন্ন সামরিক এবং রাজনৈতিক সংঘাত চলমান রয়েছে। ফলে এই অঞ্চলের মানুষের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বাসস্থান, কর্মসংস্থান এবং উন্নয়ন ব্যাহত হচ্ছে দারুণভাবে। সংঘাতের ফলে অর্থনৈতিক অনুন্নয়নের পাশাপাশি রাজনৈতিক তথা শাসন ব্যবস্থা ও বিচারব্যবস্থা খুবই দুর্বল থেকে যাচ্ছে। প্রতি মুহূর্তে অস্ত্র ও সন্ত্রাসের কারণে অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে এবং লঙ্ঘিত হচ্ছে মানবাধিকার। জঙ্গী ও সন্ত্রাসবাদের বিস্তার এশিয়ার বহু দেশকে জর্জরিত করে ...

Read More »

উন্নয়ন প্রকল্পে গতি এসেছে

সম্পাদকীয় সরকারের শেষ বছরে এসে বড় উন্নয়ন প্রকল্পগুলো ক্রমেই দৃশ্যমান হয়ে উঠছে। চলতি বছরের শেষে অনুষ্ঠিত হতে পারে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। তার আগেই মোটামুটিভাবে সম্পন্ন হতে পারে সম্পূর্ণভাবে বাংলাদেশের নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিতব্য পদ্মা সেতুর কাজ। অবশ্য রেলসেবা চালু হতে কিছুটা দেরি হতে পারে। বিশ্বব্যাংক মাঝখানে দুটি বছর নষ্ট না করলে এই সেতুর কাজ আরো আগেই শেষ হতে পারত। পটুয়াখালীর পায়রায় গভীর সমুদ্রবন্দরের নির্মাণকাজ শেষ পর্যায়ে। সেখানে দেশের ভবিষ্যৎ বিদ্যুৎ হাব নির্মাণের কাজও দ্রুত এগিয়ে চলেছে। পায়রায় মোট ৯ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিকল্পনা রয়েছে। এরইমধ্যে চীনা অর্থায়নে এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াটের একটি বিদ্যুেকন্দ্রের নির্মাণকাজ ৩১ শতাংশ সম্পন্ন হয়েছে। ৬৬০ ...

Read More »

শিশু নির্যাতন বেড়েছে, কার্যকর পদক্ষেপ নিন

সম্পাদকীয় একের পর অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা ঘটেই চলেছে- যা আশঙ্কাজনক বাস্ত্মবতাকেই সামনে আনে। বলার অপেক্ষা রাখে না, পত্রপত্রিকায় পাতা উল্টালে জানা যায় নৃশংস ঘটনা অহরহ ঘটছে, আক্রান্ত্ম হচ্ছে নারী ও শিশু। ঝুঁকিপূর্ণ কাজে শিশুদের ব্যবহারও রোধ হয়নি- এমতাবস্থায় যখন জানা যাচ্ছে যে, শিশু নির্যাতন বেড়েছে- তখন তা সন্দেহাতীতভাবে আশঙ্কাজনক বাস্ত্মবতাকে স্পষ্ট করে; যা নিরসনের কোনো বিকল্প থাকতে পারে না বলেই আমরা মনে করি। সংশিস্নষ্টদের এটা আমলে নেয়া প্রয়োজন, মানুষের হিং¯্রতা বা শিশুদের সঙ্গে এমন নেতিবাচক আচরণের কারণ কি? শিশুদের প্রতি নৃশংসতা কিংবা নির্যাতনের ঘটনা রোধ হচ্ছে না কেন? প্রসঙ্গত, সম্প্রতি জানা গেল, দেশে শিশু নির্যাতনের ঘটনা আশঙ্কাজনকভাবে বেড়েছে বলে মন্ত্মব্য করেছেন ...

Read More »

রোহিঙ্গা সংকট ও স্বাস্থ্যঝুঁকি

সম্পাদকীয় বেশ আগেই কিছু রোগ থেকে মুক্ত হয়েছে দেশ। পুরোপুরি মুক্ত না হলেও আরো কিছু রোগের প্রকোপ উল্লেখযোগ্য হারে কমানো সম্ভব হয়েছে। সর্বশেষ পোলিও রোগী দেখা গিয়েছিল ২০০৬ সালের নভেম্বরে; যদিও আনুষ্ঠানিকভাবে ২০১৪ সালের ২৯ মার্চ বাংলাদেশকে পোলিওমুক্ত ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। ডিপথেরিয়া নেই। এইডস নিয়ন্ত্রিত, এখন আক্রান্তের সংখ্যা হাতে গোনা। দূর হয়েছে হাম। কলেরা বলতে গেলে নেই। যক্ষ্মাও নিয়ন্ত্রিত। কিন্তু সম্প্রতি এসব রোগের প্রত্যাবর্তনের শঙ্কা দেখা দিয়েছে। মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মধ্যে যারা বাংলাদেশের চিকিৎসাব্যবস্থার আওতায় এসেছে, তাদের কারো কারো মধ্যে উপর্যুক্ত কোনো না কোনো ব্যাধির উপস্থিতি পাওয়া যাচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য থেকে জানা যায়, পোলিও, কলেরা-হাম-রুবেলা ...

Read More »

মাদক সর্বগ্রাসী হয়ে উঠছে

সম্পাদকীয় মাদকের নেশা যেভাবে ছড়িয়ে পড়ছে তাতে দেশের ভবিষ্যৎ নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন অনেকেই। আগে তরুণ-যুবকরা মাদকে আসক্ত হতো। এখন কিশোর, এমনকি কিশোরীরাও মাদকাসক্তির শিকার হচ্ছে। অতীতে মাদকের তালিকায় প্রধান দ্রব্যটি ছিল গাঁজা। এখন সেই তালিকায় যোগ হয়েছে আরো অনেক নাম। তার মধ্যে সবচেয়ে ভয়ংকর মাদকটির নাম ইয়াবা। চিকিৎসাবিজ্ঞানীদের মতে, এটি কেউ দীর্ঘদিন ব্যবহার করলে তার মধ্যে মানবিক গুণাবলি বলে কিছু অবশিষ্ট থাকে না। খুন-খারাবিসহ হেন অপকর্ম নেই, যা তারা করতে পারে না। শারীরিকভাবেও এর ক্ষতি ভয়ংকর। অথচ ইয়াবা এখন প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলেও সহজলভ্য হয়ে গেছে। এই ইয়াবার কারবার অত্যন্ত লাভজনক হওয়ায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোর অনেক সদস্যের বিরুদ্ধেও মাদক কারবারে বা ...

Read More »

নির্বাচনই বড় ইস্যু

সম্পাদকীয় দেশের রাজনৈতিক অঙ্গন যদি স্থিতিশীল থাকে, তার প্রভাব পড়ে সর্বত্র। উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হয় না। অর্থনীতির চাকা গতিশীল থাকে। ২০১৭ সালে দেশের রাজনৈতিক অঙ্গন স্থিতিশীল থাকায় ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে রপ্তানি আয়ে। নতুন বছর শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রাজনৈতিক অঙ্গন নিয়ে মানুষের মনে কিছুটা হলেও আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। কারণ বছরটি নির্বাচনের বছর। গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি সিটি করপোরেশন নির্বাচন হবে নতুন বছরে। আর বছরের শেষ দিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হওয়ার কথা। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের ধারণা, এবারের নির্বাচনে কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখোমুখি হতে হবে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগকে। দলের প্রস্তুতি সম্পর্কে যে খবর পাওয়া যাচ্ছে, তা থেকে ধারণা করা যেতে পারে, আওয়ামী লীগ এরইমধ্যে ...

Read More »

পণ্যের চড়া মূল্যের প্রভাব

অর্থনীতির বেশ কিছু সূচকে অগ্রগতি লক্ষণীয়। মাথাপিছু আয় এক হাজার ৬০০ ডলার ছাড়িয়েছে। জিডিপির প্রবৃদ্ধির হার ৭ শতাংশের বেশি। অবকাঠামোর উন্নয়ন ঘটছে। তার পরও এখনো প্রায় দুই কোটি মানুষ অতিদরিদ্র। দেশের বেশির ভাগ মানুষ অতিদরিদ্র বা নিম্ন ও নিম্নমধ্য আয়ের অন্তর্ভুক্ত। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বেড়ে গেলে তাদের জীবনমানে বিরূপ প্রভাব পড়ে। গত বছর চাল-তেল প্রভৃতি নিত্যপণ্যের দাম বাড়ায় সমস্যায় পড়তে হয়েছে সাধারণ মানুষকে। মূল্যবৃদ্ধির কারণে ১৬ কোটির মধ্যে ১২ কোটি মানুষকেই, অর্থাৎ মোট জনসংখ্যার ৭৫ শতাংশকেই ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে। খাদ্যসহ নিত্যপণ্যের চড়া মূল্য তাদের বাড়তি আয় খেয়ে ফেলেছে। অনেকের সঞ্চয় কমেছে। উন্নয়নে সুষমতা ও নিত্যপণ্যের বাজারে নজরদারির অভাবের কারণে এমনটি ...

Read More »

দুর্ঘটনায় বেড়েছে নিহতের সংখ্যা, কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে

সম্পাদকীয় দেশে আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে চলেছে সড়ক দুর্ঘটনা। দুর্ঘটনায় মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। প্রতিদিনই দেশের কোনো না কোনো অঞ্চলে সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষ মারা যাচ্ছে। কিন্তু ভয়াবহ এ দুর্ঘটনাগুলো কেন হচ্ছে কারা এজন্য দায়ী তা শনাক্ত করে দায়ীদের শাস্ত্মি নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে সংশিস্নষ্ট কর্তৃপক্ষের মনোযোগ ও তৎপরতা চোখে পড়ছে না। দুর্ঘটনা প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ না করার কারণেই এর পুনরাবৃত্তি হচ্ছে। যথাযথ পদক্ষেপ না নেয়ার কারণেই এ দেশের মানুষ আপনজন হারিয়ে চোখের পানি ঝরাচ্ছে আর নিঃস্ব হচ্ছে অসংখ্য পরিবার। অথচ কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে কার্যকর উদ্যোগ নিলে দুর্ঘটনা রোধ করা সম্ভব।  এক প্রতিবেদনে প্রকাশ, সড়ক, রেল ও নৌপথে দুর্ঘটনায় নিহত ...

Read More »

নির্বাচনের বছর শুরু

সম্পাদকীয় জীর্ণ-পুরনোকে পেছনে ফেলে আমরা নতুন বছরে পা রেখেছি। শুরু হয়েছে ইংরেজি নতুন বছর ২০১৮ সাল। কেমন হবে এই নতুন বছরটিÑএ নিয়ে নানা রকম জল্পনা রয়েছে। অনেকে মনে করছেন, উন্নয়নের বর্তমান গতি অব্যাহত থাকলে দেশ অনেক দূর এগিয়ে যাবে। সেই গতি অব্যাহত থাকবে কি না তা নিয়ে অবশ্য কেউ কেউ সংশয়ও প্রকাশ করছেন। বিদায়ী বছরে চালের দামসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় অনেক খাদ্যপণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় মানুষ অস্বস্তিতে ছিল। নতুন বছরে পরিস্থিতির উন্নতি হবে বলে আশা করা হচ্ছে। রোহিঙ্গা সংকট দেশকে কতদূর ভোগাবে তা নিয়েও দুশ্চিন্তা রয়েছে অনেকের, বিশেষ করে কক্সবাজার জেলার বাসিন্দাদের। সব কিছু ছাপিয়ে যে বিষয়টি আলোচনায় উঠে এসেছে তা হলো ...

Read More »

বেড়েছে শিক্ষার্থীর সংখ্যা

সম্পাদকীয় জেএসসি, জেডিসি, পিইসি ও ইবতেদায়ির ফল প্রকাশিত হয়েছে গত শনিবার। ফল বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে, এবার চারটি পরীক্ষাতেই ফল নিম্নগামী। কুমিল্লায় জেএসসির ফল বিপর্যয় ঘটেছে। ইংরেজি ও গণিতে খারাপ করেছে শিক্ষার্থীরা। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ফল সবচেয়ে খারাপ। অবশ্য বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, এই ফলের ভেতর দিয়ে দেশের শিক্ষার আসল চিত্রটিই ফুটে উঠেছে। আগামি দিনে পাসের হার কমলেও সেটাই যথাযথ ফল হবে বলে তাঁরা মনে করছেন। প্রকাশিত খবরে বলা হচ্ছে, আগে যে উদারনীতিতে খাতা দেখা হতো, তা এবার হয়নি। শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন, সরকারের প্রথম চেষ্টা ছিল শিশুদের বিদ্যালয়মুখী করা ও ধরে রাখা। তাতে সাফল্য এসেছে। এখন গুণগত মানের দিকে নজর দিতে হবে। ...

Read More »

টোকাইয়ের শতকোটি টাকা

সম্পাদকীয় দেশ নানা ক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে, অন্যদিকে সর্বনাশের সব আয়োজন সম্পন্ন হচ্ছে। দেশের যুবক, তরুণ এমনকি কিশোররা পর্যন্ত নেশাগ্রস্ত হয়ে নেতিয়ে পড়ছে। মারাও যাচ্ছে। ভয়ংকর নেশা ইয়াবা রাজধানীর অভিজাত এলাকা থেকে প্রত্যন্ত গ্রাম পর্যন্ত ছড়িয়ে গেছে। গণমাধ্যমে প্রতিনিয়ত আসছে সেসব খবর। রাজশাহীর পবা-গোদাগাড়ীসহ অনেক জায়গায় মাদকের হাট বসার খবর বেরিয়েছে। মাদকের কারবার যেন অবাধ ও অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে। আর হবে না-ই বা কেন? প্রকাশিত খবর থেকে জানা যায়, ১০ বছর আগেও যে রাস্তায় বোতল কুড়িয়ে জীবিকা নির্বাহ করত সেই টোকাই ইশতিয়াক এখন শতকোটি টাকার মালিক। ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় ১০টি বাড়ি এবং ঢাকা ও সাভারের বিভিন্ন এলাকায় শত বিঘা জমি রয়েছে। ...

Read More »

জারেও অনিরাপদ পানি

সম্পাদকীয় বছরে লাখ লাখ লোক ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়। কলেরার প্রকোপও কম নয়। আর তার অন্যতম কারণ শুধু দূষিত পানি। ঢাকা ওয়াসার পানি নিয়ে রয়েছে বিস্তর অভিযোগ। ময়লা ও দুর্গন্ধের কারণে পান করা তো দূরের কথা, স্নানও করা যায় না বলে অভিযোগ করে থাকেন বিভিন্ন এলাকার মানুষ। তাই অনেকেই এখন জারের পানি ব্যবহার করেন। ফুটপাতের দোকান থেকে অভিজাত রেস্তোরাঁÑসর্বত্রই এখন জারের পানি। কিন্তু সেই পানি কি নিরাপদ? প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, এখানেও চলছে ব্যাপক প্রতারণা। ফুটপাতের অনেক দোকানে আশপাশের ওয়াসার পানিই জারে ভরে বিক্রি করা হয়। আবার অনেক ভুয়া পানি উৎপাদক রয়েছে, যারা ওয়াসার পানি বা অন্যান্য অনিরাপদ পানি জারে ...

Read More »

সালিসে দোররা মেরে হত্যা

সম্পাদকীয় যৌতুকের জন্য দিনের পর দিন অত্যাচার, তারপর চরিত্রহীন বলে অপবাদ দেওয়া, রাতের আঁধারে সালিস বসানো, ১০১ দোররা মারা এবং অবশেষে মেয়েটির মৃত্যুÑনারী নির্যাতনের সেই একই কায়দা। এবার ঘটনাটি ঘটেছে ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার বালিয়াপুকুর গ্রামে। সালিসের নামে হত্যা করা হয়েছে মৌসুমী আক্তার নামের এক গৃহবধূকে। মাত্র ৯ মাস আগে তাঁর বিয়ে হয় একই এলাকার জাহাঙ্গীর নামের এক পাষ-ের সঙ্গে। হৃদয়বিদারক খবরটি এসেছে গতকালের সংবাদ মাধ্যেমে। জানা যায়, বিয়ের সময় ৩০ হাজার টাকাসহ অন্যান্য সামগ্রী যৌতুক হিসেবে দেওয়া হলেও জাহাঙ্গীর পরে আরো এক লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। মৌসুমীর পরিবার কয়েক দফায় টাকা দিতেও চেয়েছিল। কিন্তু তিনি একসঙ্গে পুরো টাকা দাবি ...

Read More »

জাতিসংঘে রোহিঙ্গা সুরক্ষায় প্রস্তাব

সম্পাদকীয় রোহিঙ্গাদের পূর্ণ নাগরিকত্ব প্রদান, আন্তর্জাতিক ত্রাণকর্মীদের মিয়ানমারে প্রবেশ ও কাজ করার সুযোগ সর্বোপরি রোহিঙ্গাদের সুরক্ষা প্রদান নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়ে সর্বসম্মত প্রস্তাব পাস হয়েছে জাতিসংঘে। গত রবিবার অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশনের (ওআইসি) পক্ষ থেকে প্রস্তাবটি উত্থাপিত হলে এর পক্ষে ভোট দেয় ১২২টি দেশ, ভোটদানে বিরত থাকে ২৪টি দেশ এবং বিপক্ষে ভোট দেয় ১০টি দেশ। চীন ও রাশিয়ার মিয়ানমারে অর্থনৈতিক এবং বাণিজ্যিক স্বার্থজড়িত থাকায় বিরোধিতার বিষয়টি বোধগম্য হলেও অন্য দেশগুলোর ভূমিকা সুস্পষ্ট নয়। বর্তমানে বিশ্বের সর্বাধিক বিপন্ন রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর চলমান সামরিক অভিযান তথা হত্যা-খুন-ধর্ষণসহ পোড়ামাটি নীতি অবিলম্বে বন্ধসহ শান্তিপূর্ণ প্রত্যাবাসনের প্রস্তাবটি অনুমোদন করেছে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ। এর বাইরেও জাতিসংঘের ...

Read More »

বাড়ছে ইয়াবাজনিত অপরাধ

সম্পাদকীয় বাংলাদেশে দিন দিন ইয়াবার আসক্তি বাড়ছে। ২০১৫ সালের তুলনায় ২০১৬ সালে ইয়াবায় আসক্তের সংখ্যা ৫৩ শতাংশ বেড়েছে। গত বছর যারা কেন্দ্রীয় নিরাময় কেন্দ্রে চিকিৎসা নিয়েছে, তাদেরও প্রায় ৩২ শতাংশ আবারও ইয়াবায় আসক্ত হয়েছে। এই আসক্তি বাড়ার সঙ্গে অপরাধও বাড়ছে। অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে ইয়াবার আছর কাটানো মুশকিল হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইয়াবা স্নায়ুতন্ত্রকে উত্তেজিত করে। এর ফলে শারীরিক-মানসিক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়, যা নিয়ন্ত্রণ করা সব সময় সম্ভব না-ও হতে পারে। শুরুর দিকে মিয়ানমারের শান প্রদেশে খাড়া পাহাড় বেয়ে মালবোঝাই গাড়ি টানার জন্য বা কঠোর পরিশ্রমের অন্য কাজ করানোর জন্য ঘোড়াকে এ বড়ি খাওয়ানো হতো। মানবশরীরে এর প্রভাব মারাত্মক হবে সেটাই তো ...

Read More »
PopAds.net - The Best Popunder Adnetwork
Translate »